• সোমবার ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    সুত্রাপুর থানা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসতে মরিয়া বিতর্কিতরা

    অনলাইন ডেস্ক | ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ১১:৪৯ অপরাহ্ণ

    সুত্রাপুর থানা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসতে মরিয়া বিতর্কিতরা

    শিক্ষা শান্তি প্রগতি ছাত্রলীগের মূলনীতি। এই মূলনীতিকে সামনে রেখে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রতিটি ইউনিট।দেশের সর্ববৃহৎ ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ নিয়ে একের পর এক বিতর্ক তৈরি হচ্ছে ঠিক সেই মুহূর্তেই বিতর্কিতদের ঝেড়ে ফেলে ক্লিন ইমেজের নতুন নেতৃত্ব আসছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগে।তারই ধারাবাহিকতায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগ সুত্রাপুর থানা কমিটি দিতে খুজছেন নতুন নেতৃত্ব ও ক্লিন ইমেজের ছাত্রলীগের কর্মী।

    এদিকে সুত্রাপুর থানা ছাত্রলীগের নতুন নেতৃত্বে আসতে মরিয়া হয়ে উঠেছে বেশ কিছু বিতর্কিত ছাত্রনেতা। যাদের নামে ও বেনামে রয়েছে নানা রকম অভিযোগ। এদের মধ্যে অনেকেই নানা অপকর্মের জন্য এলাকায় পরেছেন সমালোচনায়।স্হানীয় সুত্রে জানা যায় সুত্রাপুর থানা ছাত্রলীগের আগামী নেতৃত্বে আসতে আলোচিত সমালোচিতদের মধ্যে প্রথমেই রয়েছে তৌসিক বিন কামালের(সাবেক সভাপতি ৪৩ নং ওয়ার্ড) নাম।তৌসিক বিন কামাল সংগঠক হিসেবে পরিশ্রমি ছাত্রনেতা তবে তার ওয়ার্ডে নানা রকম কাজের জন্য বিতর্কিত হয়ে পড়ে এই সাবেক ছাত্রনেতা।যার সাথে নেই থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের সম্পর্ক তার বিরুদ্ধে রয়েছে মাদক চাঁদাবাজি সহ নানা রকম অভিযোগ। সম্প্রীতি সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন তৌসিক বিন কামাল।বিতর্কিত কর্মকান্ডের জন্য তৌসিক বিন কামালকে ২০১৭ সালের ২৫ মার্চ জনাব এনামুল হক মিরাজ(সভাপতি সুত্রাপুর থানা ছাত্রলীগ)এবং রেজাউল করিম (সাধারণ সম্পাদক সুত্রাপুর থানা ছাত্রলীগ) ৪৩ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের কমিটি স্থগিত করেন। যা আর পুর্নবহাল করা হয়নি।

    ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার একটি মদ খাওয়ার ছবি ভাইরাল হয়।এছাড়াও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সংরক্ষিত নারী আসনের আওয়ামী প্রার্থীর প্রচারনায় বিরোধিতা করেন তৌসিক বিন কামাল তার কর্মীদের বলে বেড়াচ্ছে তিনি হচ্ছে সুত্রাপুর থানা ছাত্রলীগের আগামীর সভাপতি। এলাকায় মিষ্টি বিতরন করছে তাও শোনা যায়।৪৪ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সজল কুন্ডের অভিযোগের মাত্রাও কম নয়।তার বিরুদ্ধে রয়েছে চাঁদাবাজি ইভটিজিং সহ নানা রকম অভিযোগ। এছাড়া সজল কুন্ড দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেন যেখানে আওয়ামী প্রার্থী থাকা সত্ত্বেও। এই ছাত্রনেতা সরাসরি মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত না থাকলেও মাদক ব্যবসায়িদের থানা থেকে ছাড়ানোর সুপারিশ করিয়ে দেন। সজল কুন্ড এবং রেজাউল করিম একে অপরের নানা রকম বিতর্কিত কাজের সঙ্গী।

    এদের মধ্যে কেউ যদি নেতৃত্বে আসে তাহলে ভবিষ্যতে ছাত্রলীগ কোথায় গিয়ে দাড়াবে বললেন তা নিয়ে সংশয় স্থানীয় আওয়ামী লীগের সভাপতি /সাধারণ সম্পাদক

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ১১:৪৯ অপরাহ্ণ | শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

    shikkhasangbad24.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
    advertisement

    সম্পাদক ও প্রকাশক : জাকির হোসেন রিয়াজ

    সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বাড়ি# ১, রোড# ৫, সেক্টর# ৬, উত্তরা, ঢাকা

    ©- 2021 shikkhasangbad24.com all right reserved