• মঙ্গলবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    সিরাজগঞ্জে যমুনার পানি ১৬ সেন্টিমিটার বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত

    অনলাইন ডেস্ক | ০২ অক্টোবর ২০২০ | ১০:৩২ অপরাহ্ণ

    সিরাজগঞ্জে যমুনার পানি ১৬ সেন্টিমিটার বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত

    পাহাড়ি ঢল ও টানা বর্ষণের কারণে যমুনা নদীর পানি বেড়ে বর্তমানে সিরাজগঞ্জ ও কাজিপুরে বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

    গত ২৪ ঘন্টায় ১১ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে কাজিপুর পয়েন্টে বিপদসীমার ১৬ সেন্টিমিটার ও সিরাজগঞ্জ শহর রক্ষা হার্ট পয়েন্ট এলাকায় বিপদসীমার ৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

    আজ শুক্রবার (২ অক্টোবর) সকালে সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগী প্রকৌশলী এ কে এম রফিকুল ইসলাম পানি বৃদ্ধির বিষয়টি নিশ্চত করেন। যমুনার পানি দ্রুত বৃদ্ধি পাওয়ায় জেলার কাজিপুর, সদর, বেলকুচি, চৌহালী, শাহজাদপুর ও তাড়াশ উপজেলার নিম্ন এলাকা এবং বিস্তীর্ণ চরাঞ্চল তলিয়ে গেছে। সেই সাথে ডুবে গেছে ফসল, ঘর-বাড়ি ও গ্রামীন সড়ক। এতে চরম দুর্ভোগের মধ্যে রয়েছেন বন্যা কবলিত মানুষ।

    সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের সুত্রে জানা যায়, চলতি বছরের জুনের প্রথম থেকেই যমুনা নদীর পানি সিরাজগঞ্জ ও কাজিপুর পয়েন্টে বাড়তে শুরু করে। গত ২৮ জুন উভয় পয়েন্টেই বিপদসীমা অতিক্রম করে। এরপর ৪ জুলাই থেকে আবার কমতে শুরু করে এবং ৬ জুলাই বিপদসীমার নিচে নেমে যায় যমুনার পানি। ৯ জুলাইয়ের পর ফের বাড়তে থাকে এবং ১৩ জুলাই দ্বিতীয় দফায় বিপদসীমা অতিক্রম করে কাজিপুর ও সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে।

    টানা ২৫ দিন দীর্ঘস্থায়ী বন্যা হওয়ার পর ৭ আগস্ট যমুনার পানি উভয় পয়েন্টেই বিপদসীমার নিচে নেমে যায়। এর মধ্যে কয়েক দফায় যমুনার পানি কমতে ও বাড়তে থাকলেও বিপদসীমা অতিক্রম করেনি। ১৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় কাজিপুর পয়েন্টে আবার বিপদসীমা অতিক্রম করেছে যমুনার পানি। এরপর থেকে যমুনার পানি দু’টি পয়েন্টেই হ্রাস-বৃদ্ধি হতে থাকে। ১ অক্টোবর কাজিপুর পয়েন্টে ও (২ অক্টোবর) আবার বিপদসীমা অতিক্রম করলো।

    সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার মেছড়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ জানান, পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় আমার ইউনিয়নের ৬টি ওয়ার্ডের মানুষের বাড়ি-ঘরে পানি ঢুকে পড়েছে। তাদের জন্য জরুরি খাদ্য সহায়তা চেয়ে তালিকা পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।
    সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী একেএম রফিকুল ইসলাম বলেন, টানা বর্ষণের কারণে যমুনায় পানি বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় কাজিপুর পয়েন্টে ৫ সেন্টিমিটার ও সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে ৬ সেন্টিমিটার বেড়েছে। তবে পানি বৃদ্ধিতে আতঙ্কের কোনো কারণ নেই। বৃষ্টিপাতের কারণেই যমুনাসহ অভ্যন্তরীণ নদ-নদীগুলোর পানি বাড়ছে। আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে পানি স্থিতিশীল হতে পারে বলে তিনি জানান।

    সিরাজগঞ্জ জেলা ত্রাণ ও পুর্ণবাসন কর্মকর্তা আব্দুর রহিম জানান, চলতি বন্যায় জেলার ৬টি উপজেলার বন্যা কবলিত মানুষদের মাঝে কাজিপুর-৪৫০, বেলকুচি-২৫০, তাড়াশ-২৫০, সদর-২৫০, শাহজাদপুর-৩০০ ও চৌহালী-১৭০০ শুকনো খাবার প্যাকেট দেওয়া হয়েছে। বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকারী বরাদ্দের ত্রাণ ও নগদ টাকা মজুদ রয়েছে। পরিস্থিতি অনুযায়ী ত্রাণ ও টাকা বিতরণ করা হবে।

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ১০:৩২ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ০২ অক্টোবর ২০২০

    shikkhasangbad24.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০ 
    advertisement

    সম্পাদক ও প্রকাশক : জাকির হোসেন রিয়াজ

    সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বাড়ি# ১, রোড# ৫, সেক্টর# ৬, উত্তরা, ঢাকা

    ©- 2021 shikkhasangbad24.com all right reserved