• মঙ্গলবার ৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    যৌন নিপীড়নের শিকার দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র হাসপাতালে ভর্তি

    অনলাইন ডেস্ক | ০৫ নভেম্বর ২০২০ | ১:১৬ পূর্বাহ্ণ

    যৌন নিপীড়নের শিকার দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র হাসপাতালে ভর্তি

    জামালপুর শহরের বগাবাঈদ এলাকায় দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্র (৯) পাশবিক যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে প্রতিবেশী মুদি দোকানি আব্দুস ছাত্তার (৬০) চকলেটের লোভ দেখিয়ে শিশুটিকে তার দোকানে নিয়ে আরো দুই শিশুর সামনেই তাকে যৌন নিপীড়ন করেছে বলে শিশুটির বাবা অভিযোগ করেছেন। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় মঙ্গলবার রাতে শিশুটিকে জামালপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শিশুটি বর্তমানে সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

    অভিযোগে জানা গেছে, জামালপুর শহরের বগাবাঈদ মধ্যপাড়া এলাকার মুদি দোকানি আব্দুস সাত্তার মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে প্রতিবেশী এক দরিদ্র রাজমিস্ত্রির নয় বছর বয়সের ছেলেকে চকলেটের লোভ দেখিয়ে ফুসলিয়ে তার দোকানে নিয়ে চকলেট খেতে দেন। এ সময় আব্দুস ছাত্তার তার পরিচিত স্থানীয় আরো দুই শিশুকে ডেকে দোকানে নিয়ে আসেন। এরপর দোকানের শাটার বন্ধ করে ওই দুই শিশুর সামনেই শিশুটির মুখচেপে ধরে বিবস্ত্র করে পাশবিক যৌন নিপীড়ন করেন। এতে শিশুটি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে। শিশুটি বাড়িতে গিয়ে তার স্বজনদের কাছে ঘটনা খুলে বলে। মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর তাকে জামালপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে যৌন নিপীড়নকারী আব্দুস ছাত্তার ও তার লেলিয়ে দেওয়া স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তি ঘটনা ধামাচাপা দিতে শিশুটির পরিবারকে হুমকি ও ভয়ভীতি দেখাচ্ছে।

    বুধবার রাত ৯টার দিকে সদর হাসপাতালের দোতলায় প্রসূতি ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা যায়, শিশুটির চিকিৎসা চলছে। যৌন নিপীড়নের কারণে তার পায়খানা-প্রস্রাব বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। বর্তমানে সে কিছুটা সুস্থ। শিশুটির বাবা অভিযোগ করে বলেন, স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তি ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার উদ্দেশ্যে আমাকে থানায় যেতে নিষেধ করেন এবং ভয়ভীতি দেখান। কিন্তু ঘটনা জানাজানি হলে এখন নিপীড়নকারী দোকানদার ছাত্তারের বিরুদ্ধে গ্রামের বেশিভাগ মানুষ ক্ষেপে গেছে। ঘটনার পর থেকে আমার ছেলেটা খুবই অসুস্থ হয়ে পড়েছে। আমার ছেলের এই অবস্থায় আমি খুব দুঃশ্চিন্তায় আছি। আমি এ ঘটনার উপযুক্ত বিচার চাই। বৃহস্পতিবার থানায় গিয়ে আব্দুস ছাত্তারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করব।

    এ ঘটনা প্রসঙ্গে জামালপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সালেমুজ্জামান বুধবার রাত ১১টার দিকে বলেন, বগাবাঈদ এলাকায় যৌন নিপীড়নের শিকার ওই শিশুটির খোঁজ নিতে একজন দারোগাকে হাসপাতালে পাঠিয়েছিলাম। এ ব্যাপারে শিশুটির পরিবারের কেউ এখনো পর্যন্ত থানায় অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে দ্রুত আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ১:১৬ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ০৫ নভেম্বর ২০২০

    shikkhasangbad24.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১ 
    advertisement

    সম্পাদক ও প্রকাশক : জাকির হোসেন রিয়াজ

    সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বাড়ি# ১, রোড# ৫, সেক্টর# ৬, উত্তরা, ঢাকা

    ©- 2022 shikkhasangbad24.com all right reserved