• শনিবার ১৭ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    ফাহিমের দেহ বৈদ্যুতিক করাতে কয়েক টুকরো করা হয় : আতঙ্কে প্রবাসীরা

    অনলাইন ডেস্ক | ১৫ জুলাই ২০২০ | ৮:৪০ অপরাহ্ণ

    ফাহিমের দেহ বৈদ্যুতিক করাতে কয়েক টুকরো করা হয় : আতঙ্কে প্রবাসীরা

    বাংলাদেশে রাইড শেয়ারিং পাঠাওর সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও পরবর্তীতে নাইজেরিয়াতে ‘গোকাডার’ প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফাহিম সালেহর (৩৩) ক্ষত-বিক্ষত লাশ মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) বিকেলে নিউইয়র্ক নগরীর ম্যানহাটনে নিজ অ্যাপার্টমেন্টে থেকে পুলিশ উদ্ধার করেছে।
    বৈদ্যুতিক করাত দিয়ে ফাহিমের দেহ কয়েক টুকরো করা হয়েছে বলে নিউইয়র্কের পুলিশ জানায়। সন্দ্বীপের হরিসপুরের সন্তান নিউইয়র্ক সিটি সংলগ্ন পোকিপস্পিতে বসবাসরত আইবিএমর সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার সালেহ আহমেদের একমাত্র ছেলে ফাহিমকে নির্দয়ভাবে হত্যার সংবাদ গভীর বেদনার সঙ্গে প্রচার করেছে শীর্ষস্থানীয় মার্কিন মিডিয়া। ফাহিমের এমন হত্যাকাণ্ডে পুরো বাংলাদেশি কমিউনিটিতে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।
    বাংলাদেশ থেকে সুন্দর ও নিরাপদ ভবিষ্যতের সন্ধানে যুক্তরাষ্ট্রে এসে বসতি গড়া পরিবারের মধ্যে সবচেয়ে মেধাবী ও উদ্যমী এবং সফল তরুণ উদ্যোক্তা হিসেবে মার্কিন ধারাতে বিশেষ একটি স্থান করে নিয়েছিলেন ফাহিম। কীভাবে একটি সুন্দর জীবনের মৃত্যু এভাবে ঘটল এমন আক্ষেপে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফাহিমের ছবি ও নিউজ শেয়ার করে হতাশার কথাও বলছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা।
    গত এক মাস থেকে নিউইয়র্কে আইনশৃঙ্খলার চরম অবনতি ঘটায় এমনিতে আতঙ্কে আছেন বাংলাদেশিরা। এরমধ্যে ফাহিমের হত্যাকাণ্ড আরও আতঙ্ক বাড়িয়ে দিয়েছে বলেও অনেকে এই প্রতিবেদককে জানান ।

    এদিকে পুলিশ জানায়, ঘাতকের সন্ধানে ফাহিমের অ্যাপার্টমেন্টে প্রবেশের সিটিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পুলিশ আরও জানিয়েছে, সুপরিকল্পিতভাবে তাকে করাত দিয়ে টুকরো টুকরো করার পর খণ্ডিত অংশগুলো একটি থলিতে ভরার অপেক্ষায় ছিল অ্যাপার্টমেন্টের ভেতরেই। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, গত বছর সোয়া দুই মিলিয়ন ডলারে অ্যাপার্টমেন্টটি ক্রয় করেন ফাহিম।
    করোনার মহামারির পুরো সময় তিনি ছিলেন মা-বাবার সঙ্গে পোকিস্পিতে। কয়েক দিন আগে এসেছেন অভিজাত শ্রেণির বিলাসবহুল এই অ্যাপার্টমেন্টে। স্বল্পভাষী ফাহিমের মৃত্যু সংবাদে গোটা কমিউনিটি স্তম্ভিত, ব্যথিত এবং ক্ষুব্ধ। এই অল্প বয়সেই ফাহিমের সম্পদের পরিমাণ প্রায় অর্ধ বিলিয়ন ডলার। তবু কোনো অহমিকা ছিল না তার। সাদামাটা জীবনযাপনে অভ্যস্ত ফাহিম ছিলেন অবিবাহিত। তার এই হত্যাকাণ্ডে কে বা কারা জড়িত তা উদঘাটনের দাবি উঠেছে কমিউনিটি এবং তরুণ উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে।

    ম্যানহাটনের লোয়্যার ইস্টসাইডে লাক্সারি এই অ্যাপার্টমেন্টের প্রবেশ পথের ভিডিও ফুটেজের উদ্ধৃতি দিয়ে নিউইয়র্ক পুলিশের মুখপাত্র সার্জেন্ট কার্লোস নিয়েভেস জানান, ফাহিমের শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন মাথা, বুক, দুই হাত ও দুই পা পাওয়া গেছে কক্ষের ভেতরেই।
    পুলিশ আরও জানায়, ফাহিমের বোনের টেলিফোন পেয়ে ওই ভবনের সপ্তম তলায় ফাহিমের অ্যাপার্টমেন্টে যায় পুলিশ অফিসাররা। আগের দিন থেকেই ফাহিমের কোনো সন্ধান না পেয়ে তার ছোটবোন উদ্বিগ্নচিত্তে ছুটে গিয়েছিলেন সেখানে। ভেতরে ভাইয়ের শিরশ্ছেদকৃত দেহাবশেষ দেখেই ফোন করেছিলেন ৯১১ এ।

    ভিডিও ফুটেজের উদ্ধৃতি দিয়ে পুলিশ আরও জানায়, ১৩ জুলাই সোমবার বিকেলে ফাহিম লিফট দিয়ে ওই ভবনে ঢুকেছেন। তার পেছনেই ছিল স্যুট পরা এক ব্যক্তি, যার মাথায় টুপি, মুখে মাস্ক, হাতে গ্লাভস ছিল। সঙ্গে ছিল একটি স্যুটকেস।
    পুলিশের ধারণা, ফাহিম তার বাসায় প্রবেশের সময়ে আক্রান্ত হতে পারেন। এরপরই তাকে হয়তো নিস্তেজ করা হতে পারে। পুলিশ অফিসার আরও উল্লেখ করেছেন যে, ঘাতক খুবই চালাক শ্রেণির। ফাহিমের খণ্ডিত দেহ প্লাস্টিকের ব্যাগে পাওয়া গেছে। করাতে তেমন রক্ত দেখেননি পুলিশ অফিসারেরা। মেধাবী ছাত্র ফাহিম নিউইয়র্কে একটি হাই স্কুলে পড়া অবস্থায়ই ‘উইজ টিন’ নামক একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছিলেন। বেশ অর্থও আয় করতে সক্ষম হন।

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ৮:৪০ অপরাহ্ণ | বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০

    shikkhasangbad24.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    advertisement

    সম্পাদক ও প্রকাশক : জাকির হোসেন রিয়াজ

    সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বাড়ি# ১, রোড# ৫, সেক্টর# ৬, উত্তরা, ঢাকা
    01646741484 | hossainreaz694@gmail.com

    ©- 2021 shikkhasangbad24.com all right reserved