• মঙ্গলবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    পেরুর নাইটক্লাবে পুলিশি অভিযানের সময় ১৩ জন নিহত, আহত অনেকে

    অনলাইন ডেস্ক | ২৩ আগস্ট ২০২০ | ১০:০২ অপরাহ্ণ

    পেরুর নাইটক্লাবে পুলিশি অভিযানের সময় ১৩ জন নিহত, আহত অনেকে

    দক্ষিণ আমেরিকার দেশ পেরুর একটি নাইটক্লাবে পুলিশের অভিযানকালে পদপিষ্ট ও শ্বাস বন্ধ হয়ে ১৩ জন নিহত হয়েছেন। করোনাভাইরাসের কারণে দেশটির সরকারের দেয়া নিষেধাজ্ঞা অমান্যের অভিযোগে ওই অভিযান চালায় পেরুর পুলিশ। ঘটনায় ৩ পুলিশসহ অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়েছেন। শনিবার (২২ আগস্ট) রাতে পেরুর রাজধানী লিমায় অবস্থিত থমাস রেস্টোবার নামের ওই নাইটক্লাবটিতে অভিযান চালায়।

    ঘটনার আকশ্মিকতায় গোটা দেশজুড়ে সমালোচনা শুরু হয়েছে দেশটির পুলিশের। সমালোচনার মুখে দেশটির শীর্ষস্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তা অরল্যান্ডো ভেলাস্কো বলেন, ‘আমরা দুর্ঘটনাবশত ১৩ জন মানুষের মৃত্যুর জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি।’

    হোটেলটিতে উপস্থিত ছিলেন এমন একজন জানান, ‘পুলিশ এসে প্রথমে হোটেল মালিকের সঙ্গে কথা বললো। সেখানে পার্টিতে অংশ নেয়া কেউ যায়নি। এরপর পুলিশ একটি ক্যামেরা নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করলো। তারপর তারা দরজা বন্ধ করে টিয়ার কাদানে গ্যাস নিক্ষেপ করতে লাগলো। তখন সেখানে মানুষ পাগলের মতো ছোটাছুটি করতে লাগলো। কারণ কেউই নিশ্বাস নিতে পারছিল না।’

    অভিযান পরিচালনাকারী পুলিশ কর্মকর্তা জোস লুইস আমেজুয়েটা বলেন, ‘আমরা সেখানে অভিযান চালাতে গিয়ে অবাক হয়েছি। পার্টিতে ৩০ নয়, একশজনের বেশি লোক ছিলো। আমরা প্রবেশ করার পর সবাই তাড়াহুড়ো করে বের হয়ে যেতে চাইলো। তখন আমরা তাৎক্ষণাত হোটেলটির দরজা বন্ধ করে দেই। সবাইকে আটক করতে সক্ষম হই। আমরা সবাইকে পেছনের দিকে যেতে বলি এবং বসে যাওয়ার নির্দেশ দেই।কিন্তু ‍কেউই সেটি করেনি।’

    নিহতের ঘটনায় দেশটির একজন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, ‘ওই হোটেলের প্রবেশ এবং বাহিরের জন্য একটি মাত্র পথ ছিলো। পুলিশ প্রবেশ করার পর সবাই তাড়াহুড়ো করে বের হতে গিয়েই এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে।’ যদিও তাদের এই বক্তব্যের সঙ্গে প্রত্যক্ষদর্শী ও ভুক্তভোগীদের বক্তব্যের কোনো মিল খুঁজে পাওয়া যায়নি। ঘটনায় পুলিশ ২৩ জনকে আটক করেছে বলে জানায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

    একই সময়ে দেশটির রাজধানী লিমায় আরো বেশ কয়েকটি নাইটক্লাবে অভিযান চালায় পুলিশ। করোনাভাইরাস মোকাবেলায় পেরুতে মার্চ থেকেই সব ধরণের বার ও নাইটক্লাব বন্ধের নির্দেশ দেয় সরকার। একই সঙ্গে গত ১২ আগস্ট পারিবারিক সব অনুষ্ঠানের উপরও নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার বিবেচনায় সবচেয়ে নাজেহাল অবস্থা বিরাজ করছে দেশটিতে। দক্ষিণ আমেরিকার দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আক্রান্ত এখানেই। এই অভিযানের একদিন আগে দেশটির রাজধানীতে কারফিউ জারি করা হয়।

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ১০:০২ অপরাহ্ণ | রবিবার, ২৩ আগস্ট ২০২০

    shikkhasangbad24.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০ 
    advertisement

    সম্পাদক ও প্রকাশক : জাকির হোসেন রিয়াজ

    সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বাড়ি# ১, রোড# ৫, সেক্টর# ৬, উত্তরা, ঢাকা

    ©- 2021 shikkhasangbad24.com all right reserved