• বৃহস্পতিবার ১৭ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    ছয় কর্মকর্তার বিদেশ সফরের প্রস্তাব

    অনলাইন ডেস্ক | ১৯ অক্টোবর ২০২০ | ৮:৪৫ পূর্বাহ্ণ

    ছয় কর্মকর্তার বিদেশ সফরের প্রস্তাব

    কোভিড-১৯ শুরুর আগে গত বছরের ১৮ নভেম্বর প্রকল্পটি নিয়ে অনুষ্ঠিত হয় প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভা। সেখানে পরিকল্পনা কমিশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল প্রকল্পের আওতায় ছয় (এক ব্যাচ) কর্মকর্তার বৈদেশিক প্রশিক্ষণ বা শিক্ষা সফর বাবদ মোট ৪৮ লাখ টাকার সংস্থান রাখতে হবে।

    তবে এই প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে বিষয়, ব্যাচভিত্তিক দফতর উল্লেখসহ প্রশিক্ষণার্থীর সংখ্যা, প্রশিক্ষণ দিবসের সংখ্যা, দেশের নাম ইত্যাদি উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবে (ডিপিপি) উল্লেখ করতে হবে।

    প্রকল্পটির দায়িত্বপ্রাপ্ত পরিকল্পনা কমিশনের কৃষি, পানিসম্পদ ও পল্লী প্রতিষ্ঠান বিভাগের সদস্য জাকির হোসেন আকন্দ প্রকল্প সার-সংক্ষেপে উল্লেখ করেছেন, ভূ-উপরিস্থ পানি নির্ভর সেচ কার্যক্রম সম্প্রসারণের জন্য প্রকল্পটি প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় বিদ্যুৎ ছাড়াও সৌরশক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে সেচ কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে।

    এটি বাস্তবায়িত হলে প্রকল্প সংশ্লিষ্ট এলাকায় ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে, যা খাদ্য স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন ধরে রাখাসহ দারিদ্র্য বিমোচনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।

    প্রকল্প প্রস্তাবে বলা হয়েছে, প্রয়োজনীয় সেচ অবকাঠামো নির্মাণের মাধ্যমে ২৩ হাজার ৩৪০ হেক্টর জমিতে ভূ-উপরিস্থ পানির সহায্যে সেচ কার্যক্রম সম্প্রসারণ করা হবে। এছাড়া সেচ সম্প্রসারণের সঙ্গে জলাবদ্ধতা দূরীকরণের মাধ্যমে প্রতি বছর অতিরিক্ত প্রায় এক লাখ ৭৭ হাজার মেট্রিক টন ফসল উৎপাদন করা সম্ভব হবে। প্রস্তাবে আরও বলা হয়, বৃহত্তর দিনাজপুর ও জয়পুরহাট এলাকায় মোট আবাদযোগ্য জমির পরিমাণ প্রায় ছয় লাখ ১৬ হেক্টর।

    এর মধ্যে প্রায় পাঁচ লাখ ২৮ হেক্টর জমি সেচের আওতায় এসেছে এবং অবশিষ্ট প্রায় শূন্য দশমিক ৮৮ লাখ হেক্টর জমি সেচবহির্ভূত রয়েছে। সেচবহির্ভূত জমির মধ্যে ২৩ হাজার ৩৪০ হেক্টর জমিতে সেচ সম্প্রসারণের জন্য প্রকল্পটির প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রকল্প এলাকায় ভূ-উপরিস্থ পানির উৎস থাকা সত্ত্বেও পানি সংরক্ষণের মাধ্যমে শুষ্ক মৌসুমে সেচকাজ ব্যবহার কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় পৌঁছায়নি।

    তাই আবাদযোগ্য অনেক জমি পতিত রয়েছে। নদীর সঙ্গে সংযোগ খালসহ অন্যান্য খাল ও জলাশয় পুনঃখননের মাধ্যমে পানি সংরক্ষণ করে শুষ্ক মৌসুমে সেচকাজে ব্যবহার করা হবে। এতে সেচকাজে ভূ-গর্ভস্থ পানি ব্যবহারের ওপর চাপ কমে যাবে।

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ৮:৪৫ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ১৯ অক্টোবর ২০২০

    shikkhasangbad24.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০ 
    advertisement

    সম্পাদক ও প্রকাশক : জাকির হোসেন রিয়াজ

    সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বাড়ি# ১, রোড# ৫, সেক্টর# ৬, উত্তরা, ঢাকা

    ©- 2021 shikkhasangbad24.com all right reserved